মিলার বিরুদ্ধে সাবেক স্বামীকে এসিড ছোড়ার অভিযোগে মামলা

Share This Story !

জনপ্রিয় শিল্পী মিলার বিরুদ্ধে অ্যাসিড হামলার মাধ্যমে হত্যাচেষ্টার অভিযোগে মামলা হয়েছে। মামলাটি করেছেন তার সাবেক স্বামী এস এম পারভেজ সানজারির বাবা এস এম নাসির উদ্দিন। বুধবার উত্তরা পশ্চিম থানায় মামলাটি করা হয়। মামলায় মিলা ছাড়াও তার সহকারী পিটার কিমকে আসামি করা হয়েছে।

উত্তরা পশ্চিম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তপন চন্দ্র সাহা জানান, অ্যাসিড অপরাধ দমন আইনের ৫ (খ) ৭ ধারায় মিলার বিরুদ্ধে মামলা করেছেন তার সাবেক স্বামী পারভেজ সানজারির বাবা এস এম নাসির উদ্দিন। উত্তরায় তিন নম্বর সেক্টরের ৭/বি নম্বর সড়কে তাঁর ছেলে পারভেজের গায়ে অ্যাসিড নিক্ষেপের অভিযোগ করে মিলা ও পিটার কিমকে আসামি করে মামলাটি করেন তিনি।

অভিযুক্তদের গ্রেফতার করা হবে কি না জানতে চাইলে ওসি বলেন, আমরা ঘটনাটি তদন্ত করে দেখছি। তদন্ত করে আইন অনুযায়ী পদক্ষেপ নেয়া হবে।

সংগীতশিল্পী মিলার সাবেক স্বামী পারভেজ সানজারি ২ জুন দুর্বৃত্তদের ছোড়া অ্যাসিডে দগ্ধ হন। ওইদিন রাত আটটার দিকে উত্তরার ৩ নম্বর সেক্টরে পারভেজের গায়ে কে বা কারা অ্যাসিড ছুড়ে মারে। তিনি এখন ঢাকা মেডিকেলে বার্ন ইউনিটে চিকিতসাধীন। তার শরীরের ৮ থেকে ১০ শতাংশ পুড়ে গেছে।

জানা যায়, ২০১৭ সালের মে মাসে মিলা-পারভেজ বিয়ে করেন। কয়েক মাস না যেতেই তাদের সম্পর্কে ফাটল ধরে। ছয় মাস সংসার করার পর ওই বছরের সেপ্টেম্বরে তাদের ডিভোর্স হয়।

২০১৭ সালের অক্টোবরে পারভেজের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলাও করেন মিলা। এসব নিয়ে তাদের মধ্যে দ্বন্দ্ব চলছিল। এসিড নিক্ষেপের ঘটনায় মিলা জড়িত থাকতে পারে বলে ধারণা করছেন পারভেজ।

পারভেজ উত্তরার ৩ নম্বর সেক্টরের ৭ নম্বর সড়কের ৩১ নম্বর বাড়িতে বসবাস করেন।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা নেয়ার সময় পারভেজ সাংবাদিকদের জানান, রোববার রাত ৮টার দিকে তিনি বাসা থেকে মোটরসাইকেল নিয়ে বের হন। কিছু দূর যাওয়ার পরই তার সাবেক স্ত্রী মিলার সহকারী জন পিটার হালদার কিম তাকে মোটরসাইকেল থামার সংকেত দেন।

তিনি মোটরসাইকেল থামানোমাত্র পিটার এসিড ছুড়ে পালিয়ে যান। পারভেজের অভিযোগ, মিলার সঙ্গে তার বিয়েবিচ্ছেদ হওয়ার পর তিনি হুমকিতে ছিলেন। বিভিন্ন সময় তাকে হুমকি দেন মিলা। তার ধারণা, এই এসিড নিক্ষেপের ঘটনায় মিলা জড়িত থাকতে পারেন।

About The Author

Related posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *