এবার নারায়ণগঞ্জে স্ত্রীর সামনে স্বামীকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা!

Share This Story !

স্টারবার্তা নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি: শুক্রবার সকাল ৯টার দিতে নারায়ণগঞ্জ জেলার বন্দর উপজেলার বক্তারকান্দি এলাকায় স্ত্রীর সামনে শাহীন(৪২) নামে একজনকে হত্যার চেষ্টা করেছে নারী নির্যাতন ও ধর্ষণ মামলার আসামী আমজাদ ও তার ছেলেরা।

হামলার প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, গতকাল শুক্রবার সকালে আমজাদ ও তার ছেলে আপন, হৃদয় ও ভাগিনা শফিক রং মিস্ত্রি শাহীনকে রাস্তায় একা পেয়ে গালিগালাজ করে। গালিগালাজ এর খবর পেয়ে রং মিস্ত্রী শাহীনের স্ত্রী ববি স্বামীকে তাদের সামনে থেকে ফিরিয়ে নিতে রাস্তায় চলে আসেন। ঠিক এ সময় আমজাদ ও তার ছেলেরা শাহিনের স্ত্রী ববির সামনেই শাহীনকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা করে।

হামলার সময় এলাকবাসীর সাহসী ভূমিকার প্রাণে বেঁচে যায় পেশায় রং মিস্ত্রী শাহীন। হামলায় গুরুতর আহত শাহীনের নারায়নগন্জ ৩০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

বক্তারকান্দি এলাকাবাসী জানান, নাসিক ২৪নং ওয়ার্ডের বন্দরের বক্তারকান্দি এলাকার মৃত লাল চাঁন মিয়ার ছেলে আমজাদের বিরুদ্ধে প্রায় ৩ বছর আগে নারী নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেন বন্দরের বক্তারকান্দি এলাকার গিয়াসউদ্দিনের ছেলে শাহীনের স্ত্রী ববি।

মামলার কারণে শাহীন ও তার স্ত্রীর প্রতি ক্ষুব্দ ছিল আমজাদ।

এদিকে এলাকাবাসী আরো জানায়, সন্ত্রাসী আমজাদ রং মিস্ত্রি শাহীনের বিয়েতে উকিল হয়। এর সূত্র ধরে সে উকিল মেয়ে ববির বাসায় আসা যাওয়া করত। এক পর্যায়ে উকিল মেয়ের ওপর তার কুনজর পড়ে। সে রং মিস্ত্রি শহীনের স্ত্রী ববিকে জোর পূবর্ক ধর্ষণ করে। এ ধর্ষণের ঘটনায় আমজাদের বিরুদ্ধে নারী নির্যাতন আইনে মামলা হয়। এ মামলায় আমজাদ কয়েকদিন জেল খাটে। এর জের ধরে আমজাদ ও তার ছেলেরা শুক্রবার শাহীনকে তার স্ত্রীর সামনে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা করে।

হামলার খবর শুনে পুলিশ ঘটনাস্খল পরিদর্শন করে ২ চি এসএস পাইপ উদ্ধার করে ও মামলা রুজু করে।

এদিকে দিনের হামলার পর আবারও শুক্রবার রাতে হামলা চালাই আমজাদ বাহিনী। রাতে হামলায় আহত হোন শাহীনের আত্নীয় আকবর হোসেন ও তার চেলে রুবেল। আকবর হোসেনের অবস্থা গুরুতর তাই ঢাকা মেডিক্যালে ভর্তি করা হয়ছে।

এই হামলার ঘন্টায় মূল আসামী আমজাদের ভাইকে পুলিশ ধারালে অস্ত্র সহ গ্রেফতার করে কিন্তু মূল আসামী আমজাদ ও তার ছেলেদের এখোন পুলিশ ধরতে পারে নি। তাদের ধরতে পুলিশের অভিযান চলছে বলে জানায় পুলিশ।

About The Author

Related posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *